‘পদ্মাসেতুতে দুর্নীতি হয়নি, বিশ্বব্যাংকই করাপ্ট’

পদ্মাসেতু নিয়ে বিশ্বব্যাংকের মিথ্যা অভিযোগের সমালোচনা করে কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী বলেছেন, পদ্মাসেতুতে দুর্নীতি হয়নি এটা জেনেও তারা দুর্নীতির অভিযোগ এনেছে সেই বিশ্বব্যাংক ইটসেলফ দুর্নীতিবাজ। তারাই করাপ্ট। তারাই করাপ্ট গ্রাউন্ড এর উপর দাঁড়িয়ে আছে।

১২ ফেব্রুয়ারি রোববার জাতীয় সংসদের অনির্ধারিত আলোচনায় অংশ নিয়ে একথা বলেন। পদ্মাসেতুতে কানাডার আদালত কোনো দুর্নীতির প্রমান পায়নি এসংক্রান্ত খবর প্রকাশিত হওয়ার পর এনিয়ে কথা বলেন তিনি।

বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানকে উদ্দেশ্য করে মতিয়া বলেন, আমরা সবার সঙ্গে বন্ধুত্ব চাই, শক্রুতা চাই না। তাই বলতে চাই বিহেভ হিউম্যানলি এন্ড জেনন্টেলমেনলি।

তিনি বলেন, যখন টেলিভিশনের দেখলাম কানাডার আদালত রায় দিয়েছে পদ্মাসেতুর কোনো দুর্নীতি তারা পাননি। এসেনসিন লাভনিং তারাও নির্দোষ প্রমাণিত হয়েছে তখন আবেগে কন্ঠ রুদ্ধ হয়ে আসছিল।

তিনি বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নিজের জন্য এই সেতু করতে চাননি। সারা জাতির উপকারের জন্য, দেশের উন্নয়নের জন্য চিন্তা করেছিলেন। অথচ এটাকে কেন্দ্র করে বিশ্বব্যাংক নিজেদের কি মনে করে জানি না । তবে তারা এতটা শক্তিশালী না। তাদের শক্তি ৩০ লাখ লোকের রক্ত ২ লাখ মা বোনের সম্ভ্রমের বিনিময়ে অর্জিত স্বাধীনতাকে উপহাস করার শক্তি তাদের নেই। এই স্বাধীন দেশের মানুষকে অপমান করতে পারে এই শক্তি বিশ্বব্যাংকের আল্লাতালা দেন নাই।

তিনি বিশ্বব্যাংককে উদ্দেশ্য করে আরো তিনি বলেন, “ওখানে কিছু লোক বইয়া আছে, রিটায়ার। কারো কারো আবার নানান ধরনের কানেকশন। তার ভিত্তিতে ওইখানে বইসে কিছু টাকা নিয়া নাড়াচাড়া করে তারপর লম্বা লম্বা কথা বলে। ’

তিনি টিআইবির সমালোচনা করে বলেন, প্রতিষ্ঠাটি বলছে পদ্মাসেতুতে দুর্নীতি হয় নাই এজন্য বিশ্বব্যাংকের কাছে জবাবদিহীতা চাওয়া উচিত। আমরা চাইব কেন? আমাদের কাছে তো প্রমাণই আছে। কিন্তু টিআইবি আপনারা কি করছেন? আপনার কৈফিয়ত চান না কেন? আপনারা তো সমস্ত কিছুতে আমাদের সরকারের কাছে কৈফিয়ত চান। আসলে আপনারা চাইতে পারবেন না। কারণ যাদের বিভিন্ন জায়গায় সুতায় বাধা তারা এটি চাইতে পারবে না।

Share Button