যে ১০টি কাজের মাধ্যমে আপনি হতে পারেন একজন উত্তম স্ত্রী

হাদিসে আছে যে, ‘স্বামীই হচ্ছে স্ত্রীর জান্নাতের চাবি। সুতরাং ইসলাম স্বামী ও স্ত্রী উভয়কে দিয়েছে সম্মান ও মর্যাদা’। কিভাবে আপনি একজন উত্তম স্ত্রী হবেন? দাম্পত্য জীবন সুখী হওয়ার জন্য সর্বপ্রথম কাজ হলো মহান আল্লাহর কাছে দোয়া করা।

আল্লাহপাক মানুষ সৃষ্টি করেছেন। তাদেরকে জোড়ায় জোড়ায় বিভক্ত করে দিয়েছেন। নারী পুরুষের এই জোড়া আল্লাহর পক্ষ থেকে নির্ধারিত। অনেকে তার ইচ্ছামতো করে জীবন সঙ্গী নির্ধারণ করতে চায় কিন্তু সেটা করতে পারে না। কেননা মহান আল্লাহ তার জীবন সঙ্গী হিসেবে পছন্দের সেই নারীকে নির্ধারণ করে রাখেন নি। ইসলাম স্বামী ও স্ত্রী উভয়কেই দিয়েছে ভিন্ন ভিন্ন মর্যাদা। একটি হাদিসে আমাদের রাসূল (সা.) বলেছেন, ‘সর্বোত্তম পুরুষ সেই ব্যক্তি যে তার স্ত্রীর কাছে উত্তম, আমি আমার স্ত্রীর কাছে সর্বোত্তম ব্যক্তি’। আরও একটি হাদিসে এমনও আছে যে, ‘স্বামীই হচ্ছে স্ত্রীর জান্নাতের চাবি। সুতরাং ইসলাম স্বামী ও স্ত্রী উভয়কে দিয়েছে সম্মান ও মর্যাদা’। একজন স্ত্রী স্বামীর কাছে কিভাবে উত্তম স্ত্রী হতে পারবেন এমন ১০ টি ইসলামী টিপস উল্লেখ করা হলো-

১. দাম্পত্য জীবন সুখী হওয়ার জন্য সর্বপ্রথম কাজ হলো আল্লাহ মহানের কাছে দোয়া করা- স্ত্রীর প্রথম কর্তব্য হলো দোয়া করা। আসলে আমাদের জীবনের সকল ভালো বিষয়গুলোই হচ্ছে মহান আল্লাহর পক্ষ থেকে। সুতরাং আল্লাহকে আমাদের ভুলে গেলে চলবে না। আল্লাহই পারেন আমাদের দুনিয়ার বৈবাহিক জীবনে সফলতা দান করতে।  এজন্য একজন স্ত্রীকে অবশ্যই আল্লাহর কাছে এভাবে দোয়া করতে হবে- হে আল্লাহ! আপনি আমাদের বৈবাহিক জীবনকে উত্তম রূপে যাপন করার তাওফিক দান করুন এবং আমাদেরকে জান্নাত দান করুন।

২. স্বামীর কথা শোনা এবং তার আনুগত্য করা- স্ত্রীর কর্তব্য স্বামীর আনুগত্য করা। কেননা স্বামীই হচ্ছে ঘরের কর্তা সুতরাং তাকে তার প্রাপ্য সম্মান ও অধিকার দেওয়াই হচ্ছে একজন আদর্শ স্ত্রীর কর্তব্য।

৩. স্বামীকে সব সময় খুশি রাখার চেষ্টা করা- স্বামীকে সব সময় খুশি রাখা। হাদিসের‌ ভাষ্য হলো- স্বামীই হচ্ছে স্ত্রীর জান্নাতের চাবি। আমাদের মহানবী হযরত মুহাম্মাদ (সা.) বলেন, ‘কোন নারী যদি এমন অবস্থায় মারা যায় যে তার স্বামী তার ওপর সন্তুষ্ট তাহলে সে জান্নাতে যাবে’। সুতরাং একজন আদর্শ স্ত্রীর সব সময়ের কামনা হবে স্বামীকে সন্তুষ্ট রাখা।

৪. ঝগড়া এবং সব ধরনের রাগারাগি করা থেকে বিরত থাকা- কারণ ছোট একটি রাগারাগি হতে পারে স্বামী-স্ত্রীর মাঝে দ্বন্দ্বের কারণ। হয়তো স্ত্রীর কোনো দোষ নেই, এমনকি স্ত্রী কোনো দোষ করেনি। তবুও স্ত্রীর উচিত হবে, সরি বলে পরিস্থিতিকে অনুকূলে নিয়ে আসা। নিজেদের মাঝের কোনো বিষয়ে প্রতিবাদ না করা। কেননা প্রতিবাদ করলেই মূলত দ্বন্দ্বের সৃষ্টি হয়। এমন পরিস্থিতির সূচনাতেই যদি স্ত্রী বলে সরি..। আসো আমরা মিলে যাই। তাহলে কখনো স্বামী-স্ত্রীর মাঝে দ্বন্দ্ব হবে না।

৫. স্বামীকে তার ভালো কাজের জন্য ধন্যবাদ জানানো- একজন আদর্শ স্ত্রী যখন স্বামীকে তার ভালো কাজের জন্য ধন্যবাদ জানাবে তখন স্বামী খুশি হবেন। এটা একটা গুরুত্বপূর্ণ পদ্ধতি। আমাদের সমাজের যে সকল নারীরা এমন করেন না তাদের বৈবাহিক জীবন খুব একটা ভালো হয় না।

৬. স্বামীর সাথে আড্ডা দেওয়া- এটা একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। কারণ পুরুষদের স্বাভাবিক স্বভাব হচ্ছে তারা হৃদয়গ্রাহী ও হাস্যোজ্জ্বল নারীদের পছন্দ করে। আমাদের নবী (সা.) একটি হাদিসে বলেছেন, ‘হে জাবের! তুমি এমন নারীকে বিবাহ করো যে তোমাকে আনন্দ দেবে এবং তুমিও তাকে আনন্দ দেবে’।

৭. নিজে সর্বদা হাস্যোজ্জ্বল থাকুন-  অনেক আগে থেকেই নারীরা ঘরে গয়না পরতো ও সাজসজ্জা করে থাকতো। পবিত্র কুরআনে এসেছে, ‘তোমার কাছে যেই ধরণের গয়না আছে তুমি তা পরো এবং সুন্দর সুন্দর পোশাক পরিধান করো তোমার স্বামীর জন্য’। সুতরাং একজন আদর্শ নারীর কর্তব্য হবে এই আর্দশকে অনুসরণ করা।

৮. হুর আল-আইনের (জান্নাতি নারী) বৈশিষ্ট্যগুলি পর্যালোচনা করুন এবং তাদের অনুকরণ করার চেষ্টা করুন- কেননা কুরআন ও হাদিসে জান্নাতি নারীদের বৈশিষ্ট্য বর্ণনা করা হয়েছে সেই বৈশিষ্ট্যগুলো ধারণ করার চেষ্টা করুন।

৯. স্বামী কাজ থেকে ঘরে ফিরলে তার যত্ন নিন- ধরুন আপনার স্বামী এখন অফিস শেষে বাসায় ফিরবে সুতরাং আপনি আপনাদের বাসাটাকে সুন্দরভাবে পরিষ্কার করে রাখুন, নিজে ভালো কাপড় পরিধান করুন এবং সন্তানদের ভালো কাপড় পরিধান করান। এমনটাই একজন পুরুষের কাম্য। আর এর মাধ্যমেই মূলত স্বামী ও স্ত্রীর বৈবাহিক জীবনে সুখ ও শান্তি বৃদ্ধি পায়।

১০. স্বামীর হৃদয় জয় করার জন্য আপনি সর্বোচ্চ চেষ্টা করুন আল্লাহ আপনাকে সকল প্রকার সৌন্দর্য দান করেছেন। আপনি আপনার এই সকল সৌন্দর্যকে ব্যবহার করে আপনার স্বামীর হৃদয়কে জয় করুন।

সূত্র : মুসলিমস্টোরিজ.টপ

প্রিয় ইসলাম/সিফাত বিনতে ওয়াহিদ

Share Button