মাইগ্রেনের ব্যথা কমায় রসুন-দুধ

মাইগ্রেনের ব্যথা কমায় রসুন-দুধ

রসুনের সঙ্গে দুধ? শুনলে অনেকেই নাক কুঁচকাবেন। চলতি ভাবনায় অনেকেই মনে করেন রসুন আমিশ। তাই রসুনের সঙ্গে দুধ কখনই খাওয়া যায় না। কিন্তু এই রসুন আর দুধ একসঙ্গে খেতে পারলে কাজ হবে ম্যাজিকের মতো। সাম্প্রতিক সমীক্ষা অন্তত তাই বলছে।

শুধুমাত্র সমীক্ষা নয়, আর্য়ুবেদ শাস্ত্রও ঠিক একথা বলে। যেকোনো ব্যথা উপশমে দুধ আর রসুন একসঙ্গে খেলে খুব ভালো ফল পাওয়া যায়। বিশেষ করে মাইগ্রেনের ব্যথা থেকে রেহাই মেলে। এই মাইগ্রেনের ব্যথা যার হয়, সে-ই একমাত্র বোঝে এর ব্যথা কতটা তীব্র ও যন্ত্রণাদায়ক হয়।

তাই প্রতিদিন দুধের সঙ্গে রসুন মিশিয়ে খাওয়ার অভ্যাস করতে পারলে মাইগ্রেনের ব্যথা অনেক কমে যায়। এছাড়া রসুনের মধ্যে অ্যান্টি- ইনফ্ল্যামেটারি উপাদান থাকায় ব্যথা থেকে রেহাইও মেলে। পাশাপাশি ক্যানসার থেকেও দূরে থাকা যায়।

আরও যে যে উপকারে আসে রসুন-দুধ

কোষ্ঠকাঠিন্য কমবে: যাদের কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা আছে তারা কিন্তু অনেকেই রোজ নিয়ম করে গরম দুধ খান। এবার তাতে কয়েক কোয়া রসুন থেঁতো করে ফেলে দিন। পরের দিন সকালে পেট একদম পরিষ্কার হয়ে যাবে। গ্যাস, অম্বলের সমস্যাও কমবে।

কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে থাকে: শরীরে কোলেস্টেরল বেশি থাকলে হার্টের সমস্যা দেখা দেয়। রসুন দেয়া দুধ খেলে কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে থাকবে এবং হার্টের মধ্যে রক্তচলাচল ভালো হবে।

গেঁটে বাত সারায়: গাঁটে গাঁটে ব্যথা অনেক কমিয়ে দেয় রসুন-দুধ। এমনিতেই গরম দুধ ব্যথা কমায়, সেই সঙ্গে রসুন প্রদাহ থেকে রক্ষা করে। সব মিলিয়ে খুব ভালো উপকার পাওয়া যায়।

ব্রণ সারায়: মুখের যাবতীয় কালো দাগ ছোপ ব্রণ সব সেরে যাবে যদি রসুন-দুধ খেতে পারেন।

এছাড়াও রসুনকে গরীবের পেনিসিলিন বলা হয়। তাই রাতে রুটির সঙ্গে রসুন চিবিয়ে খেলে বা রাতে ঘুমোতে য়াওয়ার আগে রসুনের জুস দিয়ে দুধ খেলে যৌন ক্ষমতা বাড়ে।

যেভাবে বানাবেন রসুন-দুধ

রসুনের কোয়া ভালো করে ছাড়িয়ে নিয়ে ব্ল্যান্ডারে দিয়ে জুস করে নিন। এবার এই জুসের সঙ্গে একগ্লাস গরম দুধ মেশান। ঘুমোতে যাওয়ার আগে খান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *